খবর
সাইটের Notice মেনুতে সংযুক্ত পত্র মোতাবেক কোভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকাকালীন সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত পাঠদান কার্যক্রম এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত অনলাইন পাঠদান ও অন্যান্য কার্যক্রম সংক্রান্ত সভায় অংশগ্রহণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করা হ’ল।

জেলা শিক্ষা অফিস প্রধানত বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদরাসাসূহের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নিয়োজিত থাকলেও সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের নানাবিধ কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত। শিক্ষা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান যেমন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড, এনটিআরসিএ, ব্যানবেইস, নায়েমসহ মাধ্যমিক শিক্ষা খাতে বাস্তবায়নাধীন বিভিন্ন প্রকল্প প্রধানত জেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমেই তাদের কর্মকান্ড পরিচালনা করে থাকে। শিক্ষামন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ও আঞ্চলিক অফিসের মাধ্যমে প্রাপ্ত যাবতীয় নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের মূল দায়িত্ব জেলা শিক্ষা অফিসের উপর ন্যস্ত। এ ছাড়া মাঠ পর্যায় থেকে তথ্য সংগ্রহ করে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে প্রেরণ জেলা শিক্ষা অফিসের কর্মকান্ডের একটি অন্যতম দিক। জেলার শিক্ষা সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে জেলা প্রশাসনকে সহায়তা প্রদান, জেলার বিভিন্ন কমিটিতে সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন, শিক্ষা সংশ্লিষ্ট অনিয়ম ও দুর্নীতি রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ ও প্রয়োজনে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট সুপারিশ প্রেরণ, বিভিন্ন জাতীয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় উদ্যাপন ও জেলা শিক্ষা অফিসের আওতাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ মনিটরিংসহ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষাঅফিসের কর্মকর্তা/কর্মচারীদের কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদির ফলে  জেলা শিক্ষা অফিসের কাজের ব্যাপকতা ও বিস্তৃতি বর্তমানে অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। মূলতঃ জেলা শিক্ষা অফিসের জনবল সীমিত, যার বেশির ভাগই শূণ্য। সীমিত ও স্বল্প জনবল দ্বারা এ ব্যাপক কর্মকান্ড পরিচালিত হচ্ছে। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে শূন্য পদসমূহ পূরন করলে কাজের গতি বৃদ্ধি পাবে। 

০১। জেলার নাম : নীলফামারী।

০২। উপজেলার সংখ্যা : ০৬(ছয়)টি, নীলফামারী সদর, ডোমার, ডিমলা, জলঢাকা, কিশোরগঞ্জ, সৈয়দপুর।

০৩। জনসংখ্যা:নীলফামারী জেলায় মোট জনসংখ্যা ১৮,৩৪,২৩১।মোট জনসংখ্যায় পুরুষ ৯,২২,৯৬৪ জন এবং মহিলা ৯,১১,২৬৭ জন। পুরুষ ও মহিলার অনুপাত- ১০১:১০০। জেলায় প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১১৮৬ জন লোক বসবাস করে এর মধ্যে মুসলিম-৮২.৬৪%, হিন্দু-১৭.১৭%, বৈদ্ধ-০.০২%, খ্রিষ্টান- ০.০৭% এবং অন্যান্য-০.১০%। শিক্ষার হার ৫১% (পুরুষ- ৬৩%, মহিলা ৩৭%)। 

০৫। শিক্ষা তথ্য ব্যবস্থাপনাঃ

ক) ০১ জুলাই ২০১৩ হতে শিক্ষক/কর্মচারীদের এমপিও ভূক্তি, টাইম স্কেল, বিএড স্কেল, উচ্চতর স্কেল, সংশোধনী সংক্রান্ত সকল কাগজপত্রাদি অন-লাইনের মাধ্যমে উপ-পরিচালক, রংপুর অঞ্চল, রংপুর/মহাপরিচালক, মাউশি অধিদপ্তর, ঢাকা মহোদয় বরাবরে প্রেরণ করা হচ্ছে। 

খ) সেসিপ প্রকল্পের অধীনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক জেলা শিক্ষা অফিসে ইএমআইএস (এডুকেশন ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম) সেল স্থাপন করা হয়েছে। উক্ত সেলের Institutional Self-Assessment Summary (ISAS) -এর মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গ্রেডিং করা হচ্ছে।  

গ) ব্যানবেইস কর্তৃক ইতোমধ্যেই মাধ্যমিক স্তরের বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণের বিস্তারিত তথ্যাবলি সংগ্রহ করে ডাটা এন্ট্রি করা হয়েছে।